মাস্টার কার্ডে অর্থ পাচার ঠেকাতে নজরদারিতে বিদেশি প্রতিষ্ঠান

13/08/2017 1:04 am0 commentsViews: 2

এফএনএস: এদেশে মাস্টার কার্ড ব্যবসায় জড়িত বিদেশি প্রতিষ্ঠান-গুলোকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে। স্বল্পসময়ের মধ্যেই এদেশে মাস্টার কার্ডের ব্যবসায় জড়িত বিদেশি কোম্পানিগুলোর ওপর বিধি নিষেধ আরোপ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এমনকি ওই কোম্পানি-গুলোর যাবতীয় কর্মকা-ের ফিরিসিৱ বাংলাদেশ ব্যাংককে জানাতে বাধ্য-বাধকতাও আরোপ করা হবে। মূলত অর্থপাচার ঠেকাতেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়। কারণ ওসব বিদেশি কোম্পানির বিরম্নদ্ধে ভুয়া এ্যাকাউন্ট খুলে বিদেশে অর্থপাচারের পথ সুগম করে দেয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। আর পুরো বিষয়টি মনিটরিং করতে বিমান-বন্দরের ইমিগ্রেশন বিভাগে বিদেশে যাতায়াতকারীদের মাস্টার কার্ড চেকিং করারও চিনৱা-ভাবনা হচ্ছে। পাশাপাশি যে ব্যক্তির বাংলাদেশের কোন ব্যাংকে এ্যাকাউন্ট নেই, তার নামে বিদেশী কোন কোম্পানি কর্তৃক মাস্টার কার্ড ইস্যু না করার বিষয়েও কড়াকড়ি আরোপ করা হচ্ছে। পুলিশ সংশিস্নষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশিস্নষ্ট সূত্র মতে, অতিসম্প্রতি মাস্টার কার্ডের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে অর্থপাচারের সাথে জড়িত ৫ জনকে গ্রেফতার করে সিআইডি পুলিশের সংঘবদ্ধ অপরাধ তদনৱ বিভাগ। তাদের কাছ থেকে ১৪১টি মাস্টার কার্ড ও নগদ ৯ লাখ সাড়ে ২১ হাজার টাকা, ইসলামী ব্যাংকের সিল, ৩২টি ব্যাংক চেকসহ অনেক আলামত উদ্ধার হয়। গ্রেফ-তারকৃতরা প্রথমে ভুয়া নাম ঠিকানা ও জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বরসহ প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে অনলাইনে এ্যাকাউন্ট খোলার জন্য আবেদন করে। এ্যাকাউন্ট খোলার পর তা সচল করে। ওই এ্যাকাউন্টে অবৈধ-ভাবে বৈদেশিক মুদ্রা স’ানানৱরসহ ক্রয়-বিক্রয় করতে থাকে। পর-বর্তীতে তারা অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে মুদ্রা পাচারকারীদের কাছে ডলার ক্রয়-বিক্রয় শুরম্ন করে। তাছাড়া তারা অবৈধ প্রি-পেইড মাস্টার কার্ড তৈরি করে। ওই প্রি-পেইড মাস্টার কার্ড তৈরির জন্য অনলাইনে তারা আবেদন করে। আবেদনে তারা ভুয়া নাম ঠিকানা ব্যবহার করে। ওসব কার্ড তৈরি করে দেয়ার সাথে জড়িত কয়েকটি বিদেশী কোম্পানি। ওসব কোম্পানির মধ্যে রয়েছে স্ক্রিল, পাইওনিয়ার, নেটেলার ও ফাস্ট চয়েজ। তাছাড়াও বাংলা-দেশে মাস্টার কার্ডের ব্যবসার আড়ালে অর্থপাচারের পস্নাটফর্ম হিসেবে পেপাল, পারফেক্ট মানি, ওয়েব মানি ও বিট কয়েন নামের কয়েকটি বিদেশী প্রতিষ্ঠানও কাজ করছে বলে তদনেৱ বেরিয়ে এসেছে।
সূত্র জানায়, গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে যে ১৪১টি প্রি-পেইড মাস্টার কার্ড উদ্ধার হয়েছে, তা পাইওনিয়ার কোম্পানির মাধ্যমে তৈরি যুক্তরাজ্য থেকে বাংলাদেশে এসেছে বলে তথ্য মিলেছে। ওসব কার্ড কুরিয়ার সার্ভিস ও ডাকযোগে পাঠানো হয়। কুরিয়ার সার্ভিসের বেশকিছু অসাধু কর্মকর্তাও ওই চক্রের সাথে জড়িত। যারা ওসব প্রি-পেইড মাস্টার কার্ড তৈরি করার জন্য বিদেশে তালিকা পাঠায়, ওই চক্রটি তাদের একটি নামীয় তালিকা কুরিয়ার সার্ভিস বা পোস্ট অফিসের সংশিস্নষ্ট ওই কর্মকর্তার হাতে আগাম দিয়ে আসে। কার্ডগুলো আসা মাত্রই সেগুলো চক্রের সদস্যরা নিয়ে যায়। সেজন্য কুরিয়ার সার্ভিস ও পোস্ট অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বাড়তি আর্থিক সুবিধা পেয়ে থাকে। ওসব প্রি-পেইড মাস্টার কার্ড তৈরির ক্ষেত্রে কোন বাধ্যবাধকতা নেই। বিদেশী কোম্পানিগুলো চাহিদা মোতাবেক মাস্টার কার্ড তৈরি করে চক্রের দেয়া ঠিকানা মোতাবেক পাঠিয়ে দেয়। ওসব নামে কোন ব্যক্তি বাংলাদেশে আছে কিনা বা কোন ছিল কিনা সে তথ্যের প্রয়োজন নেই। যার নামে মাস্টার কার্ড তৈরি হলো, তার পরিচয় নিশ্চিত করারও প্রয়োজন নেই। কার্ডে পাচারকারী-দের চাহিদা মোতাবেক বৈদেশিক মুদ্রা রিচার্জ করে দেয়া হয়। সেই কার্ড মানিব্যাগে ভরে বা পকেটে করে বিমানবন্দর দিয়ে অনায়াসে মুদ্রা পাচারকারীরা তাদের নির্দিষ্ট দেশে (যে দেশে অর্থ পাচার করবে) চলে যান। ধরা পড়ার ন্যূনতম কোন আশঙ্কাই থাকছে না। কারণ অর্থপা-চারকারী নগদ অর্থপাচার করছে না। বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন বিভাগ মাস্টার কার্ড, এটিএম কার্ড বা এ ধরনের ব্যবহার্য সামগ্রী তেমন আমলে নেয় না। আর মাস্টার কার্ড কম্পিউটারে চেকিং করে তাতে কত অর্থ আছে বা দেশে ফেরার পর খরচ শেষে কত অর্থ মাস্টার কার্ডে রয়েছে তা জানারও কোন প্রয়োজনীয়তা মনে করে না। আর এমন সুবিধার কারণেই অর্থপাচারকারীরা এক বা একাধিক প্রি-পেইড মাস্টার কার্ড নিয়ে বিমানবন্দর দিয়ে অন্য দেশে গিয়ে অর্থপাচার করে দিয়ে আবার দেশে ফিরছে। বিষয়টি কারো নজরেই আসছে না। সেই দেশে যাওয়ার পর দ্রম্নত অর্থ মাস্টার কার্ড থেকে নির্দিষ্ট এ্যাকাউন্টে বা সুবিধা-জনক এ্যাকাউন্টে বা কারও নামে থাকা এ্যাকাউন্টে হসৱানৱর করছে। আবার অনেকে ক্যাশ টাকাও তুলে গচ্ছিত করে রেখে আসছে।
সূত্র আরো জানায়, প্রি-পেইড মাস্টার কার্ডের ব্যবহার অনেকটাই এটিএম কার্ডের মতো। মাস্টার কার্ডের পিন নম্বর জানা থাকলে যে কোন ব্যক্তি টাকা স’ানানৱর বা অর্থ উত্তোলন করতে পারে। েক্েষত্রে যার নামে কার্ড তৈরি হয়েছে এবং যিনি কার্ড ব্যবহার করে অর্থ তুলছেন, সেই ব্যক্তি এক না হলেও কোন সমস্যা নেই। বরং পাচারকারীদের জন্য এটি বাড়তি সুবিধা। কারণ যে অর্থপাচার করছে সে আড়ালেই থেকে যাচ্ছে। বরং বেনামে অর্থ পাচার হচ্ছে। কারণ যে কার্ড দিয়ে অর্থপাচার হচ্ছে, সেটি পাচারকারীর নামে নয়। ফলে শত চেষ্টা করেও বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বেনামে তৈরি মাস্টার কার্ডের মাধ্যমে অর্থপাচার ঠেকাতে পারছে না। এমন পরিসি’তিতে এদেশে মাস্টার কার্ডের ব্যবসার সাথে জড়িত বিদেশি কোম্পানি-গুলোর ওপর শতভাগ সঠিক মনি-টরিং ব্যবস’া চালু করা হচ্ছে। তারই অংশ হিসেবে বিদেশি কোম্পানি-গুলোকে যাদের নামে বাংলাদেশের কোন ব্যাংকে এ্যাকাউন্ট নেই, তাদের নামে কোন প্রকার মাস্টার কার্ড ইস্যু না করার বিষয়ে কড়াকড়ির আরোপ করার সিদ্ধানৱ নেয়া হচ্ছে। অবশ্যই বিদেশি কোম্পানিকে বাংলাদেশি কারও নামে মাস্টার কার্ড ইস্যু করতে হলে কোন না কোন বাংলাদেশি ব্যাংকের লিংক দিতে হবে। অর্থাৎ যার নামে মাস্টার কার্ড তৈরি হবে, অবশ্যই ওই ব্যক্তির বাংলাদেশের কোন না কোন ব্যাংকে এ্যাকাউন্ট থাকতে হবে। সেই এ্যাকাউন্টে থাকা তথ্যাদি সঠিক কিনা তা যাচাই-বাছাই শেষেই তার নামে মাস্টার কার্ড ইস্যু করতে পারবে। কারণ বিমানবন্দরে থাকা ইমিগ্রেশন বিভাগ কোন বিদেশগামী ব্যক্তি কত অর্থ মাস্টার কার্ডে ভরে নিয়ে যাচ্ছে, সাধারণত তার কোন হিসেবে রাখে না। অর্থপাচার ঠেকাতে ইমিগ্রেশন বিভাগে মাস্টার কার্ডধারীদের কার্ডে থাকা অর্থের পরিমাণ বিদেশ যাওয়ার আগে এবং বিদেশ থেকে ফেরার পথে যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া শুরম্ন করার বিষয়েও চিনৱাভাবনা চলছে।
এ প্রসঙ্গে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরম্নল ইসলাম জানান, বাংলাদেশে মাস্টার কার্ডের ব্যবসায় জড়িত বিদেশি কোম্পানি-গুলোকে নজরদারির আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলছে। বাংলাদেশে মাস্টার কার্ডের অবৈধ ব্যবসায় জড়িত বিদেশি কোম্পানিগুলোর তালিকা তৈরির কাজ চলছে। স্বল্পসময়ের মধ্যেই তাদের ডাকা হবে। কোম্পা-নিগুলোর কাছে তাদের কর্মকা-ের প্রক্রিয়া সর্ম্পকে বিসৱারিত জানতে চাওয়া হবে। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রা পাচার নিয়ন্ত্রণ বিভাগসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা চলছে।

Leave a Reply