সোনালী ডেস্ক: দেশের দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আজ ৭২তম জন্মদিন। ১৯৪৭ সালের এই দিনে তিনি গোপালগঞ্জের মধুমতি নদী বিধৌত টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স’পতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছার জ্যেষ্ঠ সন্তান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি।
ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের প্রবক্তা স্বপ্নদর্শী এই নেত্রী ১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব গ্রহণের পর থেকে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে দলকে সুসংগঠিত করেন এবং ১৯৯৬ সালে প্রথম, ২০০৮ সালে দ্বিতীয় এবং ২০১৪ সালে তৃতীয়বারের মত নির্বাচনে জয়লাভ করে দলকে দেশের নেতৃত্বের আসনে বসাতে সৰম হন। তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে।
স’ায়ী অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, খাদ্যে স্বনির্ভরতা, নারীর ৰমতায়ন, কৃষি, শিৰা, স্বাস’্য, গ্রামীণ অবকাঠামো, যোগাযোগ, জ্বালানী ও বিদ্যুৎ, বাণিজ্য, আইসিটি এবং এসএমই খাতে এসেছে ব্যাপক সাফল্য। এছাড়া যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ, বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীদের বিচার, পার্বত্য চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তি সম্পাদন, একুশে ফেব্র্বয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতিসহ জাতীয় জীবনের বহুৰেত্রে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছেন তিনি।
শেখ হাসিনার পরবর্তী ইতিহাস একবিংশ শতকের অভিযাত্রায় তিনি কিভাবে বাঙালি জাতির কা-ারী হয়েছেন তার ইতিহাস। বঙ্গবন্ধু যে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখতেন সেই স্বপ্ন রূপায়নের দায়িত্ব নিয়ে বাঙালি জাতির আলোর দিশারী হওয়ার ইতিহাস। ১৯৮১ সালের ১৩ থেকে ১৫ ফেব্র্বয়ারি অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে তাঁকে দলের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। আর ঐ বছরেরই ১৭ মে দীর্ঘ ৬ বছর প্রবাস জীবনের অবসান ঘটিয়ে মাতৃভূমি বাংলাদেশে ফিরে আসেন।
১৯৮৬ সালের সংসদ নির্বাচনে তিনি তিনটি আসন থেকে নির্বাচিত হন। ১৯৯০ সালের ঐতিহাসিক গণআন্দোলনে নেতৃত্ব দেন। ১৯৯১ সালের সংসদ নির্বাচনের পরে তিনি পঞ্চম জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের নেতা নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন পেয়ে সরকার গঠন করে এবং সে বছরের ২৩ জুন দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন।
২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়লাভ করে তিনি সপ্তম জাতীয় সংসদে বিরোধীদলের নেতা নির্বাচিত হন। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড নিৰেপ করে তাঁকে হত্যার ষড়যন্ত্র করা হয়। তিনি অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলেও ওই হামলায় ২৪ জন নিহত এবং পাঁচশ’ নেতা-কর্মী আহত হন।
২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দুই-তৃতীয়াংশের বেশি আসন নিয়ে বিশাল বিজয় অর্জন করে। এই বিজয়ের মধ্যদিয়ে শেখ হাসিনা দ্বিতীয় বারের মতো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে তৃতীয়বারের মত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।
অতি সমপ্রতি মিয়ানমার সরকারের ভয়াবহ নির্যাতনে আশ্রয়হীন ৮ লৰাধিক রোহিঙ্গা শরণার্থীকে বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়ে নাড়িয়ে দিয়েছেন বিশ্বকে। আজ সারা বিশ্বেই তাঁর নাম আলোচিত হচ্ছে ‘বিশ্ব মানবতার বিবেক’ হিসেবে। জাতিসংঘের গত অধিবেশনে বিশ্ব নেতৃবৃন্দ তাঁর এই মানবিক দৃষ্টান্তের প্রশংসা করেছেন। নিখাদ দেশপ্রেম, দূরদর্শিতা, দৃঢ়চেতা মানসিকতা ও মানবিক গুণাবলি তাঁকে আসীন করেছে বিশ্ব নেতৃত্বের আসনে।
শেখ হাসিনা বর্তমানে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে যোগদান উপলৰে যুক্তরাষ্ট্রে অবস’ান করছেন। তাঁর জন্মদিনটি উৎসব মুখর পরিবেশে পালন করবে আওয়ামী লীগ। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ শুক্রবার বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ‘নবীনদের দৃষ্টিতে শেখ হাসিনা’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতিম-লীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী।
প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার এবারের জন্মদিন আওয়ামী লীগের পৰ থেকে অসহায়, গরীব ও দুঃখী মানুষের জন্য উৎসর্গ করা হয়েছে। এ উপলৰে নেয়া হয়েছে বিস্তারিত কর্মসূচি। সকাল ১০টায় ঢাকাসহ সারাদেশে আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আনন্দ র‌্যালী ও শোভাযাত্রা কর্মসূচি পালন করা হবে। জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌর ও ইউনিয়ন পর্যায়েও এ কর্মসূচি পালন করা হবে।
শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলৰে বিশেষ ডাকটিকিট প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগ। অস্ট্রেলিয়া পোস্টের ‘পার্সোনালাইজড স্ট্যাম্প অফার’ প্রকল্পের আওতায় এ বিশেষ ডাকটিকিট প্রকাশের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। স’ানীয় সময় সন্ধ্যায় তার জন্মদিনে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশেষ এ ডাকটিকিট প্রকাশ করা হবে।
অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশের পর বিশেষ এ ডাকটিকিট অস্ট্রেলিয়া পোস্টের নির্দিষ্ট কয়েকটি দোকানে পাওয়া যাবে। এ উদ্যোগে দাপ্তরিক সহায়তা করেছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। আজ বেলা ১১টা রাজশাহী নগরীর মহানগর আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে জননেতৃ শেখ হাসিনার দূর্ঘায়ূ ও স্বুস্থ্যতা কামনা করে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। উক্ত দোয়া মাহফিলে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামীলীগ সভাপতি ও নব নির্বাচিত রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। দোয়া মাহফিলে আংশ নেন মহানগর আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেণী,নিগাত পারভিন মহানগর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ ডাবলু সরকার সহ মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। দোয়া মাহফিল শেষ মহানগর আওয়ামীলীগ সভাপতি ও নব নির্বাচিত রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন সাধারণ মানুষের মুখে মিষ্টি তুলেদেন।