মহানগর বিএনপি সম্পাদকের হাতে জেলা সম্পাদক লঞ্ছিত!

17/05/2017 1:04 am0 commentsViews: 34

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী শাহ মখদুম বিমানবন্দরে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলনের হাতে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হয়েছেন জেলার সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মন্টু।
গতকাল মঙ্গলবার বিকেল পৌনে ৪টার দিকে নগর বিএনপির সভাপতি ও সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের সামনে এ ঘটনা ঘটে বলে প্রত্যৰদর্শীরা জানিয়েছেন।
তবে ঘটনাটি মতিউর রহমান মন্টু স্বীকার করলেও এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেন শফিকুল হক মিলন। কিন্ত এ নিয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি নগর বিএনপির সভাপতি ও সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।
প্রত্যৰদর্শীরা জানায়, বিএনপির স’ানীয় কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়সহ দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের বিমানে তুলে দিতে যান জেলার সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মন্টু ও নগরের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলনসহ নেতাকর্মীরা। সাড়ে ৩টার বিমানে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়সহ কেন্দ্রীয় নেতারা বিমানে উঠেন। বিমান ছেড়ে যাওয়ার পর বিমান বন্দর থেকে বের হওয়ার সময় তর্কে জড়িয়ে পড়েন মন্টু ও মিলন। এক পর্যায়ে হাতাহাতি ও মন্টুকে ফেলে দিয়ে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হয়।
জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মন্টু বলেন, বিমানবন্দর থেকে বের হওয়ার সময় শফিকুল হক মিলন আমাকে বলে জেলার বিভিন্ন ইউনিটে আমি যাব। বেগম খালেদা জিয়া আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। এ সময় আমি (মন্টু) তাকে বলেছিল, আপনি (মিলন) নগর ইউনিটের দায়িত্বে আছেন নগরীতেই থাকেন। জেলা নিয়ে মাথা ঘামায়েন না। বেগম খালেদা জিয়া যদি আপনাকে (মিলন) জেলার দায়িত্ব দিয়ে থাকে তবে ঢাকায় চলেন।
আমাদের সামনে যদি খালেদা জিয়া বলেন তা হলে আমাদের কোন আপত্তি নেয়। এর আগে জেলা নিয়ে মাথা ঘামাতে এসেন না। এ কথা বলার সাথে সাথে উত্তেজিত হয়ে মিলন আমার গায়ে হাত তুলে এবং ধাক্কা মেরে মাটিতে ফেলে দেয়। এর পর মিলনের লোকজন তাকে দ্বিতীয় দফায় শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে এবং তার গায়ের পাঞ্জাবী টেনে ছিড়ে ফেলে। এসময় মহানগর সভাপতি ও সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল গিয়ে তাকে রৰা করেন বলে জানান মন্টু।
এ ব্যাপারে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সেখানে কোন ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করে শফিকুল হক মিলন বলেন, এ ধরণের ঘটনার কথা কেউ বলে থাকলে তা আমার বির্বদ্ধে অপপ্রচার। মন্টু আমার বড় ভাই ও রাজনীতিক সহকর্মী। তার সঙ্গে আমার কোন ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেন শফিকুল হক মিলন।
জেলা ও মহানগর কর্মী সম্মেলনে যোগ দিতে রাজশাহী এসেছিলেন বিএনপির স’ায়ী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। সোমবার নগর বিএনপির কর্মী সম্মেলন ও মঙ্গলবার জেলা বিএনপির প্রতিনিধি সম্মেলন হয়। জেলা ও নগরে দুই সম্মেলনেই দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন নেতাকর্মীরা।

Leave a Reply