ট্রাক চাপায় মামা-ভাগ্নেসহ নিহত ৩

08/05/2017 1:06 am0 commentsViews: 97

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মহানগরীতে ট্রাকের চাপায় মামা-ভাগ্নে ও পুঠিয়া উপজেলায় এক মোটরসাইকেল চালক নিহত হয়েছেন। গতকাল রোববার দুপুরে আলাদা দুটি দুর্ঘটনায় এই প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।
নগরীতে নিহতরা হলেন- নগরীর সাধুরমোড় এলাকার সোলেমান আলীর ছেলে বিশাল হোসেন (২১) ও তার ভাগ্নে হাসিবুল ইসলাম হাসিব (১৯)। হাসিব নগরীর কুঠিপাড়া এলাকার টুটুল হোসেনের ছেলে। দুর্ঘটনার সময় হাসিব অটোরিকশা চালাচ্ছিল। আর বিশাল সেই অটোরিকশায় বসেছিলেন।
এই দুর্ঘটনার পর নগরীর তালাইমারীতে সড়ক অবরোধ করে বিৰুব্ধ জনতা। পরে পুলিশ পরিসি’তি নিয়ন্ত্রণ করে। প্রত্যৰদর্শীরা জানান, গতকাল দুপুর ১টার দিকে তালাইমারী নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের মোড়ে সড়কে দুটি ট্রাক দুই দিক থেকে যাচ্ছিল। ওই সময় শহর থেকে বের হচ্ছিল একটি অটোরিকশা। অটোরিকশাটি দুই ট্রাকের মধ্যে ঢুকে যায়। এ সময় দুই ট্রাকের চাপায় অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়।
এতে দুই মামা-ভাগ্নে গুর্বতর আহত হন। পরে তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের জর্বরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। নিহত হাসিবের খালু আরিফ শেখ জানান, ছোট বেলা থেকেই হাসিব তার নানা বাড়িতে থাকত। বছর দুয়েক আগে থেকে সে অটোরিকশা চালাতো। ভাগ্নে হাসিবের অটোরিকশাতে চড়েই মামা বিশাল যাচ্ছিলেন। পথে এই দুর্ঘটনা ঘটে।
নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন খান জানান, দুর্ঘটনার পর স’ানীয়রা ট্রাক দুটিকে আটক করেছে। তাবে চালক দু’জন পালিয়েছেন।
এদিকে, নগরীর চারখুঠার মোড় সংলগ্ন বাইপাস এলাকায় মোটরসাইকেল ও ট্রাকের সংঘর্ষে আবু বক্কর (৫৫) নামে এক ব্যাংক কর্মকর্তা গুর্বতর আহত হয়েছেন। আহতকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। তিনি হড়গ্রাম নগরপাড়া এলাকার হাজি মোহাম্মদ হাশেমের ছেলে।
রামেক হাসপাতাল ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যায় কাশিয়াডাঙ্গা সোনালী ব্যাংক শাখার সেকেন্ড অফিসার আবু বক্কর বাড়ি ফেরার পথে চারখুঠার মোড় সংলগ্ন বাইপাস এলাকায় পৌঁছালে একটি ট্রাক তাকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে করে তিনি গুর্বতর আহত হন। আহতকে উদ্ধার করে রামেক হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।
অপরদিকে পুঠিয়া প্রতিনিধি জানান, পুঠিয়ায় ট্রাকের সঙ্গে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে হেলাল উদ্দিন (২৩) নামে মোটরসাইকেলের চালক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন সোহেল রানা (২৩) নামে এক মোটরসাইকেলের আরোহী।
নিহত হেলাল পুঠিয়ার ভর্বয়াপাড়া গ্রামের ইউনুস আলী সরকারের ছেলে। আহত সোহেল পবা উপজেলার হরিয়ান সুগারমিল এলাকার আবদুস সবুরের ছেলে। পবা হাইওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ মনির্বল ইসলাম জানান, গতকাল দুপুরে পুঠিয়া থেকে মোটরাসাইকেলটি নাটোরের দিকে যাচ্ছিল। ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে পুঠিয়ার তারাপুর এলাকায় মোটরসাইকেলের সঙ্গে একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।
এতে ঘটনাস’লেই প্রাণ হারান হেলাল। আর গুর্বতর আহত হন সোহেল। পরে তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়। সড়ক দুর্ঘটনায় এই তিনজন নিহত হওয়ার ঘটনায় বোয়ালিয়া ও পুঠিয়া থানায় আইনগত ব্যবস’া নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

Leave a Reply