নগরীতে জঙ্গি সন্দেহে আটক এক

14/04/2017 1:06 am0 commentsViews: 83

স্টাফ রিপোর্টার: মহানগরীর কাদিরগঞ্জ এলাকা থেকে জঙ্গি সন্দেহ আটককৃত ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ৫৪ ধারায় গতকাল বৃহস্পতিবার আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। এছাড়াও তার স্ত্রী ও দুই সন্তানকে পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়েছে বলে পুলিশ সুত্র জানায়।
আটককৃত ব্যক্তি চুয়াডাঙ্গা আলমডাঙ্গা হাইপাড়া এলাকার আফজাল-উর-রশিদের ছেলে আবির মাহমুদ (৩৫)। তার স্ত্রীর নাম ডা: তানজিলা লিসা (৩০)। তবে দুই শিশু সন্তানের নাম জানা যায়নি।
প্রত্যৰদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গোপন খবরের ভিত্তিতে বুধবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে কাদিরগঞ্জ এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে অভিযান চালায় বিপুল সংখ্যক পুলিশ, ডিবি ও আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সদস্যরা। ভবনটির সামনে একটি অ্যাম্বুলেন্সও রাখা হয়। রাত পৌনে ২টার দিকে ৮ম তলা ভবণের ৭ম তলার একটি ফ্ল্যাট থেকে ১১ লাখ ৯০ হাজার টাকাসহ সন্দেহ ভাজন আবির মাহমুদকে বাড়ি থেকে বের করে আনা হয়। তিনি একজন সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার এবং তার স্ত্রী তানজিলা লিসা একজন চিকিৎসক। তবে সেখানে কোনো গোলাগুলি বা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেনি।
তাকে নিয়ে যাওয়ার পরে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন ডিসি (পশ্চিম) একেএম নাহিদুল ইসলাম। তিনি জানান, জঙ্গি সন্দেহে একজনকে আটক করা হয়েছে। তবে জঙ্গিদের আস্তানায় যে ধরনের আলামত পাওয়া যায়, তা সেখানে পাওয়া যায়নি। ফ্ল্যাট থেকে পুলিশ ১১ লাখ ৯০ হাজার টাকা উদ্ধার ও জব্দ করেছে। এছাড়াও বাড়িওয়ালা অহিদুল ইসলাম বাচ্চুর বরাত দিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা নাহিদুল আরো জানান, প্রায় চার মাস আগে ফ্ল্যাটটি ভাড়া নিয়েছেন ওই ব্যক্তি। তিনি আউটসোর্সিংয়ের কাজ করেন। বাড়ি ভাড়া নেয়ার সময় তিনি তথ্য ফরমও পূরণ করেননি। ফ্ল্যাটে তিনি তার স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তান নিয়ে থাকতেন।
ওই সময় আটক ব্যক্তির স্ত্রী-সন্তানকে বাড়িওয়ালার জিম্মায় রাখা হলেও গতকাল সকালে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতের নেয়া হয় এবং পরে পরিবারের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়।
এ বিষয়ে সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (সদর) ইফতে খায়ের আলম জানান, জঙ্গি সন্দেহে পুলিশ তাদেরকে আটক করে। আটককৃতদের মধ্যে আবির মাহমুদকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ৫৪ ধারায় আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে এবং তার স্ত্রী ও দুই শিশুকে পরিবারের জিম্মায় গতকাল ছেড়ে দেয়া হয়েছে।
এদিকে রাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বাড়িটি ঘিরে রাখার পর সেখানে গণমাধ্যমকর্মী এবং বিপুল সংখ্যক উৎসুক মানুষ ভিড় জমান। ভবনটির পাশের আরেকটি ভবনেই থাকেন রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের এমপি আয়েন উদ্দিন। তিনিও ভবনটির সামনে দাঁড়িয়ে ঘটনা পর্যবেৰণ করেন, রাত পৌনে ২টার দিকে আটক ব্যক্তিকে ভবনের প্রধান ফটক দিয়ে বের করে আনে পুলিশ। কিন’ বিপুল সংখ্যক উৎসুক মানুষ ও গণমাধ্যম কর্মীদের দেখে পুলিশ তাকে আবারো ভেতরে নিয়ে যায়। এরপর প্রধান ফটকের সামনে একটি মাইক্রোবাস দাঁড় করিয়ে রেখে আটক ব্যক্তিকে ভবনের গ্যারেজ দিয়ে কালো রঙের একটি প্রাইভেট কারে করে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই ব্যক্তি সাদা রঙের একটি পাঞ্জাবি পরিহিত ছিলেন এবং তার মুখে ছোট ছোট দাড়ি ছিল।

Leave a Reply