রামেকে ‘শিবিরের মেইন’ ছাত্রাবাস বন্ধ ঘোষণা

09/04/2017 1:06 am0 commentsViews: 22

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) শহীদ কাজী নূর-উন-নবী ছাত্রাবাস অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
গতকাল শনিবার দুপুর আড়াইটার দিকে ছাত্রাবাসটি বন্ধ ঘোষণা করে কলেজ কর্তৃপৰ। সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে শিৰার্থীদের ছাত্রাবাস ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হলে শিৰার্থীরা হল ছাড়ে।
রামেকের এই ছাত্রাবাসটি ‘ইসলামী ছাত্রশিবিরের মেইন’ ছাত্রাবাস নামে পরিচিত। এই ছাত্রাবাসটিতে শুধু শিবির ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা থাকতেন। তাদের সঙ্গে থাকতেন ১২ জন বিদেশী শিৰার্থী। শিবিরের নেতাকর্মীরা ছাত্রাবাসটির নাম উচ্চারণের ৰেত্রে ‘শহীদ কাজী নূর-উন-নবী’ শব্দটি উচ্চারণ না করে ‘মেইন’ শব্দটি ব্যবহার করতেন।
এই ছাত্রাবাসটিকে শিবিরের বড় ‘আস্তানা’ হিসেবে বিবেচনা করা হতো। মহানগরীর শিবিরের নেতাকর্মীদের গোপন বৈঠকও হতো এখানে। গত বৃহস্পতিবার রাতে ছাত্রলীগের সঙ্গে সংঘর্ষের পর এই ছাত্রাবাস থেকে পুলিশ শিবিরের লিফলেট, বই ও ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছিল।
রামেকের উপাধ্যৰ ডা. নওশাদ আলী বলেন, বৃহস্পতিবারের রাতের ঘটনার পর পুলিশ ছাত্রাবাসটি থেকে ‘দেশবিরোধী’ কর্মকা- পরিচালনার লিফলেট ও অস্ত্র উদ্ধার করেছে। তাই সাধারণ ও বিদেশী শিৰার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে ছাত্রাবাসটি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত ছাত্রাবাসটি বন্ধ থাকবে।
প্রসঙ্গতঃ গত বৃহস্পতিবার রাতে রামেক ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ ও ছাত্রশিবিরের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ওই সময় দুই পৰের মধ্যে গুলি বিনিময়ের ঘটনাও ঘটে। এতে শিবিরের দুই কর্মী আহত হন। পরে অভিযান চালিয়ে আহত দু’জনসহ শিবিরের মোট পাঁচ কর্মীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। আর শহীদ কাজী নূর-উন-নবী ছাত্রাবাস থেকে উদ্ধার করা হয় শিবিরের লিফলেট ও ধারালো অস্ত্র।
এরপর গতকাল শনিবার দুপুরে ক্যাম্পাসে আবার ছাত্রলীগ-ছাত্রশিবির মুখোমুখি অবস’ান নেয়। এতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এরপর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা শিবিরের নেতাকর্মীদের শাস্তির দাবিতে বিৰোভ মিছিল করেন।
এদিকে বৃহস্পতিবার রাতের ঘটনা তদন্তে শনিবার পাঁচ সদস্য বিশিষ্ঠ একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। রামেকের প্রফেসর ডা. মোসাদ্দেক হোসেনকে প্রধান করে এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে কমিটিকে ১০ দিন সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply