রাবি শিৰার্থী সুমির সততা

07/04/2017 1:08 am0 commentsViews: 80

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : বাজার থেকে কেনাকাটা করে কৰে ফিরেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিৰার্থী সুমিয়ারা খাতুন সুমি। হঠাৎ খেয়াল করেন তার শপিং ব্যাগে এক লৰ টাকাসহ একটি ব্যাগ। হতভম্ব হয়ে যান সুমি। টাকা দেখে লোভী না হয়ে বরং সততার পরিচয় দিয়ে টাকাটা তার যথাযথ মালিককে ফেরত দিয়েছেন তিনি।
সুমি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের মাস্টার্সের শিৰার্থী। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় বিভাগের শিৰকদের উপসি’তিতে টাকার মালিককে তার টাকা বুঝিয়ে দেন সুমি।
সুমি জানান, বাজার থেকে ফিরে ব্যাগের মধ্যে এক লৰ টাকা দেখে ওই দোকানের শপিং ব্যাগে থাকা ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করেন তিনি। এসময় তাদের কিছু হারিয়েছে কিনা জিজ্ঞেস করেন। কিন’ তারা জানায় হারায়নি।
পরে সুমি এ বিষয়টি বিভাগের কয়েকজন শিৰককে জানালে তারা পুলিশ অথবা বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরকে জানাতে বলেন। এর কিছুৰণ পরেই ওই দোকানদার ফোন করে জানান তাদের ১ লৰ টাকা হারিয়েছে। তারা প্রামাণ দিতে পারায় তাদেরকে বিভাগে আসতে বলা হয়। শিৰকদের উপসি’তিতে যাচাই-বাছাই শেষে টাকাটা তার মালিকের হাতে তুলে দেয়া হয়।
সুমি বলেন, ‘কারো টাকার প্রতি আমার লোভ নেই। টাকাটা তার মালিকের কাছে পৌছে দেয়া আমার দায়িত্ব ছিল। আমার দায়িত্ব পালন করেছি। টাকাটা তার মালিককে দিতে পেরে প্রশান্তি পাচ্ছি।’
টাকার মালিক আশরাফুল আলম সেতু বলেন, ‘আমি একজন ৰুদ্র ব্যবসায়ী। টাকাটা হারালে বেশ ৰতি হতো। আসলে পৃথিবীতে এখনো অনেক ভাল মানুষ আছে। ওই ম্যাডাম নিজে ফোন না করলে আমি হয়তো আর আমার টাকা পেতাম না। তিনি চাইলেই পুরো টাকা নিয়ে নিতে পারতেন। আমি ম্যাডামকে দশ হাজার টাকা পুরস্কার দিতে চেয়েছিলাম। কিন’ তিনি তাও নেন নি। মানুষের কেমন হওয়া উচিত আমি ওনার কাছে শিখেছি।’ ওই শিৰার্থীর এমন সততায় তাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বিভাগের শিৰক-শিৰার্থীসহ সকলে।

Leave a Reply