গুলশান থেকে বিলাসবহুল গাড়ি জব্দ

04/04/2017 1:02 am0 commentsViews: 10

এফএনএস: রাজধানীর গুলশান থেকে একটি বিলাসবহুল বিএমডবিস্নউ গাড়ি জব্দ করেছেন শুল্ক গোয়েন্দারা। ‘কারনেট-ডি-প্যাসেজ’ সুবিধায় বাংলাদেশে আনার পর এটির ভুয়া নিবন্ধন নম্বর নেওয়া হয়েছিল বলে জানিয়েছেন তারা। গাড়িটির মালিক রম্নখসানা আমীর নামে এক ব্যবসায়ী। অবৈধ গাড়িটি জব্দ করতে গেলে তিনি গোয়েন্দাদের সঙ্গে অসহযোগিতা করেন বলে জানান শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান। তিনি জানান, এই গাড়িটির তথ্য পেয়ে গত ৩০ মার্চ গুলশান দুই নম্বরের একটি বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। রম্নখসানা আমীর শুল্ক গোয়েন্দাদের অসহযোগিতা করেন। তিনি নীল রংয়ের বিএমডবিস্নউ ৫২৫-আই সিরিজের গাড়িটি কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে রেখে চাবি দিতে অস্বীকৃতি জানান। দীর্ঘ নাটকীয়তা শেষে ওই দিন রাত ১০টায় শুল্ক গোয়েন্দারা গাড়িটি তাদের হেফাজতে নেয়। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপৰে (বিআরটিএ) যোগাযোগ করে শুল্ক ফাঁকির প্রাথমিক আলামত পাওয়ায় গতকাল সোমবার গাড়িটি শুল্ক আইন অনুযায়ী জব্দ দেখানো হয় বলে জানান মইনুল খান। শুল্ক গোয়েন্দা প্রধান বলেন, গাড়িটি কারনেট-ডি-প্যাসেজ সুবিধায় শুল্কমুক্তভাবে বাংলাদেশে আনা হয়েছিল। পরে একটি জালিয়াত চক্রের মাধ্যমে রম্নখসানা আমীর এটির মালিক হন। শুল্ক গোয়েন্দারা জানান, আনৱর্জাতিক একটি সনদ অনুযায়ী যে সুবিধায় পর্যটকরা একটি দেশ থেকে অন্য দেশে শুল্ক না দিয়েই গাড়ি নিয়ে ঢুকতে পারেন, তাকেই ‘কার্নেট ডি প্যাসেজ’ বলা হয়। তবে একটি নির্দিষ্ট সময়, অর্থাৎ দুই বা তিন মাসের জন্য এই সুবিধা পান পর্যটকরা। এতে তাদের সংশিস্নষ্ট দেশের অটোমোবাইল অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য হতে হয়। নির্দিষ্ট সময় পর গাড়িটি ফেরত না গেলে সংশিস্নষ্ট দেশের নিয়ম অনুযায়ী এর উপর শুল্ক আরোপ করা হয়। মইনুল খান বলেন, গাড়িটি ভুয়া দলিলাদি দিয়ে ঢাকা-গ ২১-০৮৭৫ হিসেবে ২০০৭ সালে রেজিস্ট্রেশন দেখানো হয়। কিন’ বিআরটিএ থেকে জানানো হয় ওই নম্বরযুক্ত কোনো মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন তাদের কার্যালয় থেকে দেওয়া হয়নি। তদনৱ শেষে এ ঘটনায় শুল্ক আইন ও মানি লন্ডারিং আইনে মামলা হবে বলে জানান তিনি। একই চক্রের মাধ্যমে আরও অনেক গাড়ি ভুয়া নিবন্ধন নম্বর (নম্বরপেস্নট) ব্যবহার করে রাসৱায় চলছে জানিয়ে মইনুল খান বলেন, শুল্ক গোয়েন্দারা এগুলো খুঁজে বেড়াচ্ছেন। গত বছর অভিযান শুরম্নর পর ৫০টির মতো শুল্ক ফাঁকি দেওয়া দামি গাড়ি আটক করেছে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তর।

Leave a Reply