দুর্গাপুরে মাদরাসার এক ছাত্রী ধর্ষিত

১৫/০৩/২০১৭ ১:০২ পূর্বাহ্ণ০ commentsViews: 68

দুর্গাপুর পৌর প্রতিনিধি দুর্গাপুর উপজেলার তিওড়কুড়ি গ্রামে বিয়ের প্রলোভনে এক মাদরাসাছাত্রী (২২) ধর্ষিত হয়েছে। ভিকটিম নিজেই বাদি হয়ে রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানায় সোমবার রাতে মামলা দায়ের করেন। ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত প্রেমিক রাকিবুল ইসলাম রাকিব (২৫)। রাকিব রাজশাহী কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞাণ বিভাগের শেষ বর্ষের ছাত্র।
ভিকটিম ছাত্রী মামলার এজাহারে অভিযোগ করেন, উপজেলার পাঁচু-বাড়ি গ্রামের মৃত শাহাবুলের পুত্র রাকিবুল ইসলাম রাকিবের সাথে ভিকটিমের গত দুই বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলতে থাকে। এই সম্পর্কের কারণে তাদের দু জনের মধ্যে একাধিকবার দৈহিক সম্পর্ক হয়। প্রেমিক রাকিবকে বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকে ভিকটিম ছাত্রী। প্রেমিকার চাপে গত ২৪ জানুয়ারি রাকিব ভিকটিমকে নিয়ে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। ওইদিন রাজশাহী কলেজের সামনের একটি ছাত্রাবাসে ভিকটিম নিয়ে গিয়ে সেখানে সারা-রাত তাকে ধর্ষণ করা হয়। পরের দিন বিয়ে না করেই ভিকটিমকে পুঠিয়ার শিবপুর এলাকায় রেখে পালিয়ে যায় প্রেমিক রাকিব। এরপর মোবাইলফোনে রাকিবকে চাপ দেয়া হলে আবারো ৩ ফেবু্রয়ারি সকালে রাজশাহীর ওই ছাত্রাবাসেই ভিকটিম-কে ডেকে নিয়ে পুনরায় ধর্ষণ করা হয়। দিনভর ভিকটিমকে ছাত্রাবাসে রেখে একাধিকবার ধর্ষণ করে ওই দিন বিকেলেই বিয়ের নাম করে বানেশ্বর বাজারে নিয়ে গিয়ে ভিক-টিমকে রেখে আবারো পালিয়ে যায় প্রেমিক রাকিব। ওইদিন বাড়ি ফিরে এসে রাতের বেলা বৈদ্যুতিক শক্‌ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় ভিকটিম। পরে বাড়ির লোকজন টের পেয়ে ভিকটিমকে ৪ ফেবু্রয়ারি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করে। একদিন পর তাকে হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) স’ানানৱর করা হয়। ৭ ফেব্রম্নয়ারি চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরে ৯ ফেবু্রয়ারি থানায় মামলা করতে গেলে স’ানীয় প্রভাব-শালীরা বিষয়টি মিমাংসার আশ্বাস দিয়ে ভিকটিমকে  থানা থেকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। এ ঘটনায় সোমবার রাতে রাজশাহী মহানগরীর বোয়া-লিয়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভিকটিম নিজেই বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

Leave a Reply