স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়র্বজ্জামান লিটনের সাথে মতবিনিময় করেছেন মহানগর পুলিশ কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। রোববার দুপুরে নগরভবনের সরিৎ দত্ত গুপ্ত সভাকৰে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মতবিনিমিয় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এএইচএম খায়র্বজ্জামান লিটন বলেন, সিটি কর্পোরেশনের সকল নাগরিকদের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করায় আমাদের প্রধান কাজ। এ কাজের সহযোগিতায় পুলিশের ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে।
মেয়র বলেন, মহানগরীর অনেক গুর্বত্বপূর্ণ স’ানে পুলিশ বক্স নেই। আপনারা পয়েন্টগুলো চিহ্নিত করে দিবেন। দ্র্বতই আমরা সেগুলো পুলিশ বক্স স’াপন করবো। ফুটপাত দখল নগরীর মানুষের দুর্ভোগের অন্যতম কারণ। ফুটপাত দলমুক্ত করতে কাজ করবেন। এছাড়া ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে পুলিশর সহযোগিতা চাই।
মেয়র খায়র্বজ্জামান লিটন আরো বলেন, মাদক ও জুয়ার ব্যাপারে কোন ছাড় নেই। আমার দলের নাম ভাঙিয়ে কেউ যদি মাদক ব্যবসা বা জুয়া খেলে তাদের আইনের আওতায় আনবেন। রাজশাহীতে বড় ধরনের অপরাধ অনেক কম। তারপরও কিছু চুরি-ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। এগুলো বন্ধে কাজ করতে হবে। এছাড়া ছাত্রাবাসে থেকে কেউ যাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে না পারে সেদিকে নজর রাখতে হবে।
সভায় মহানগর পুলিশ কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার বলেন, মাদক ও জঙ্গিবাদের বির্বদ্ধে আমাদের জিরো টলারেন্স। মাদক ও জঙ্গিবাদ দমনসহ সার্বিক ব্যাপারে আমাদের সহযোগিতা থাকবে।
মতবিনিময় সভায় অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সুজায়েত ইসলাম, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) তানভীর হায়দার চৌধুরী, উপ-পুলিশ কমিশনার (পশ্চিম) আমির জাফর, উপ-পুলিশ কমিশনার (পূর্ব) সাজিদ হোসেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (শাহ মখদুম) হেমায়েতুল ইসলাম, উপ-পুলিশ কমিশনার (কাসিয়াডাঙ্গা) জয়নুল আবেদিন, উপ-পুলিশ কমিশনার (সিটিএসবি) আলমগীর হেসেন, মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার ইফতে খায়ের আলম, বোয়ালিয়া জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার একরামুল হকসহ ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা উপসি’ত ছিলেন।
এর আগে নবনির্বাচিত মেয়র এএইচএম খায়র্বজ্জামান লিটনকে ফুলের শুভেচ্ছা জানান পুলিশ কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তারসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।