এফএনএস: ১৪ দলের মুখপাত্র স্বাস’্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন ১/১১ পরবর্তী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আইন উপদেষ্টা ছিলেন। খালেদা জিয়ার বির্বদ্ধে সব মামলা দিয়েছিলেন তিনিই। এখন সেই মঈনুল হোসেন বিএনপি-জামায়াতের সব হয়ে গেছেন। এরা পরীক্ষিত গণতন্ত্রবিরোধী শক্তি। এদের কথায় দেশের মানুষ বিভ্রান্ত হবে না।

গতকাল বুধবার ১৪ দলের এক সভা শেষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে মোহাম্মদ নাসিম এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দুপুরে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেন, এই ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু হত্যার পর জাতীয় চার নেতা হত্যার পর খুনি মোশতাককে নিয়ে ডেমোক্র্যাটিক লীগ করেছিলেন। আর ১/১১ এর সময় দেশবাসী ড. কামাল হোসেনের ভূমিকা দেখেছে। তিনি তখনকার অনির্বাচিত সরকার সম্পর্কে বলেছিলেন এই সরকার যত দিন ইচ্ছে চালিয়ে যেতে পারবে। এই হচ্ছেন ড. কামাল হোসেন।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত নতুন সাথী নিয়ে অযৌক্তিক দাবি তুলে অশুভ চক্রান্ত শুর্ব করেছে। ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে তারা একটি ‘অভিলাষ’ নিয়ে মাঠে নেমেছে। তাদের এই অভিলাষে দেশবাসী বিভ্রান্ত হবে না। সংবিধান অনুযায়ীই নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন হবে। আর নির্বাচনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি সরকার দেশ পরিচালনা করবে। এটা সংবিধান নির্ধারিত। স্বাস’্যমন্ত্রী নাসিম বলেন, আমরা চাই তারা নির্বাচনে আসুন, তাদের নির্বাচনে স্বাগত জানাই। কিন’ অযৌক্তিক দাবি আদায়ের নামে পরিসি’তি ঘোলাটে করার চেষ্টা করলে দেশের মানুষ তাদের প্রতিহত করবে। এ সময় টকশোকে অসত্য বক্তব্য দেওয়ায় গণস্বাস’্য কেন্দ্রের ডা. জাফরউলৱাহ চৌধুরীর বির্বদ্ধে বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা জন্য আইনগত ব্যবস’া নেওয়ারও দাবি জানান তিনি। নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে ১৪ দল মুখপাত্র বলেন, তিনি সাংবিধানিক পদে আছেন।

সাংবিধানিক পদে থেকে কেউ এ ধরনের কথা বলতে পারেন না। তার পদ ছেড়ে দেওয়া উচিত। সেনাপ্রধানকে নিয়ে অসত্য তথ্য উপস’াপনের জন্য গণস্বাস’্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি জাফর্বলৱাহ চৌধুরীর বির্বদ্ধে আইনি ব্যবস’া নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে নাসিম বলেন, টক শোতে ডা. জাফর্বলৱাহ সেনাবাহিনীর নামে অসত্য তথ্য দিয়েছেন। তিনি বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করছেন। আমরা ১৪ দলের পক্ষ থেকে এর বির্বদ্ধে আইনগত ব্যবস’া নেওয়ার দাবি করছি। সমপ্রতি সময় টিভিতে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদকে নিয়ে অসত্য তথ্য দেওয়ার পর তা স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করে সংবাদ সম্মেলন করলেও সেখানে আবার তিনি বিভ্রান্তিকর তথ্য দেন বলে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়।

ওই ঘটনায় তার বির্বদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ এনে একটি মামলা ইতোমধ্যে হয়েছে, যার তদন্ত করছে গোয়েন্দা পুলিশ। বিএনপি সমর্থক পেশাজীবী নেতা হিসেবে পরিচিত জাফর্বলৱাহ গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেনের উদ্যোগে বিএনপিকে নিয়ে জোট গঠনে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। নবগঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে নাসিম বলেন, বিএনপি-জামায়াত নতুন সাথী নিয়ে অযৌক্তিক দাবি তুলে অশুভ চক্রান্ত শুর্ব করেছে। ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে তারা একটি অভিলাষ নিয়ে মাঠে নেমেছে। জাতীয় পার্টির (জেপি) সাধারণ সম্পাদক শেখ শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে ১৪ দলের এ বৈঠকে উপসি’ত ছিলেন সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দীলিপ বড়ুয়া, জাসদের একাংশের সভাপতি শরিফ নূর্বল আম্বিয়া, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ওয়াজেদুল ইসলাম খান, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য কামরূল আহসান প্রমুখ।