স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বলেছেন, বর্তমান সরকার আসন্ন নির্বাচনের মাধ্যমে আবার ৰমতায় এলে দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে কৃষি আদালত গঠন হবে। গতকাল শুক্রবার বিকালে রাজশাহীতে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
বাদশা বলেন, সংসদে কৃষকদের পৰে আমি সব সময় সংসদে কথা বলেছি। দেখেছি, কৃষকরা অনেক সময় প্রতারিত হন। কিন্তু তারা আইনি সুবিধা পেতে নানাভাবে হয়রানির শিকার হন। তাই আমি দেশে কৃষি আদালত চালুর জন্য সংসদে দাবি তুলেছিলাম। দুবার আলোচনার পর কৃষি মন্ত্রী সেটা নীতিগতভাবে গ্রহণ করেছেন। কিন্তু মেয়াদ শেষ হয়ে আসায় আমরা সেটা বাস্তবায়ন করতে পারলাম না। আগামীতে ৰমতায় এলে এটা নিশ্চয় হবে।
রাজশাহী-২ (সদর) আসনের এই সংসদ সদস্য বলেন, শ্রমিকদের অধিকার রৰার জন্য শ্রম আদালত আছে। কৃষকদের স্বার্থ রৰার জন্য আলাদা কোনো আদালত নেই। তাই আমি মনে করি তাদের স্বার্থ রৰার জন্য কৃষি আদালত প্রতিষ্ঠা জর্বরি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আবার ৰমতায় এলে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে কৃষি আদালত প্রতিষ্ঠা করা হবে।
বাদশা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরে দেশ এগিয়ে গেছে। কিন্তু এই এগিয়ে যাওয়ার মূল চালিকাশক্তি কৃষক। তারা দেশের মের্বদ-। তাদের জন্য আজ দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। তাদের স্বার্থ রৰায় আমাদের কাজ করতে হবে। কিন্তু আমাদের কাজ করার সুযোগটাও দিতে হবে। আমরা কৃষকদের জন্য সর্বাত্মকভাবে কাজ করতে চাই। সবাই এগিয়ে যাবে, তারা পিছিয়ে থাকবে এটা হবে না।
সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ কৃষক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব অনিক ইসলাম। তিনি বলেন, কৃষকদের স্বার্থ রৰার জন্যই কৃষক পরিষদের জন্ম। এই সংগঠন কৃষকদের নিয়েই কাজ করে যাবে। এ জন্য তিনি ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা ফজলে হোসেন বাদশার সহযোগিতা কামনা করেন।
রাজশাহী মহানগরীর বিবি হিন্দু অ্যাকাডেমি প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ কৃষক পরিষদের নগর কমিটি এই সভার আয়োজন করে। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মীর ইকবাল ও জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা সম্পাদিকা অ্যাডভোকেট পূর্ণিমা ভট্টাচার্য।
বাংলাদেশ কৃষক পরিষদের রাজশাহী মহানগর কমিটির সভাপতি হাসান উদ্দিন আহমেদ দিলজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভা পরিচালনায় ছিলেন সাধারণ সম্পাদক মনির্বল ইসলাম।