স্টাফ রিপোর্টার: চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে রাজশাহীতে বাড়ছে পেঁপে আবাদ। কিন’ দাম কমে যাওয়ায় হতাশ চাষিরা।
পেঁপে চাষি ও কৃষিবিদদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, পাকা ফল ও সবজি হিসেবে দিন দিন বাড়ছে পেঁপের চাহিদা। চাহিদার দিকে লৰ্য রেখে এই অঞ্চলে বৃদ্ধি পাচ্ছে এর আবাদ। লাভজনক হওয়ায় অনেকেই পেঁপে চাষের দিকে ঝুঁকছেন। চাষিরা বলেন, কয়েক বছরে রাজশাহী জেলায় কয়েক হাজার পুকুর খনন করা হয়েছে। এই পুকুরগুলোর পাড়ে গড়ে তোলা হয়েছে পেঁপে ও কলা বাগান। এছাড়াও অন্যান্য আবাদের চেয়ে পরিশ্রম ও খরচ কম হওয়ায় অনেকে পেঁপে বাগান করেছেন। কিন’ সাম্প্রতিক সময়ে পেঁপের দাম কমে যাওয়ায় চাষিরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। বর্তমানে পেঁপে বিক্রি করে তাদের উৎপাদন খরচ উঠছেনা।
নওহাটার দৌলতপুর গ্রামের পেঁপেচাষি সেমাজুল ইসলাম জানান, বর্তমানে তার ৪ বিঘায় নতুন ও ৮ বিঘায় ১ বছরের পুরাতন পেঁপে বাগান রয়েছে। প্রতি বিঘায় ২ বছরে মোট উৎপাদন খরচ পড়ে ৬৫ থেকে ৭০ হাজার টাকা। ওই জমি থেকে পেঁপে বিক্রি হয় ১ লাখ থেকে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা। প্রতিবস্তা (৬০ কেজি) পেঁপে সাধারনত বিক্রি হয় ৩৫০ থেকে ৪শ’ টাকায়। কিন’ হটাৎ করে ১ মাস যাবত পেঁপের দাম কমে প্রতিবস্তা ২শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতে চাষিরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। এই দাম স’ায়ী হলে চাষিদের লোকসান গুনতে হবে।
কৃষিবিদরা বলছেন, পাকা ফল ও সবজি হিসেবে পেঁপের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। লাভজনক হওয়ায় এই অঞ্চলে পেঁপে আবাদ দিন দিন বাড়ছে।
রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানায়, এবছর রাজশাহীতে পেঁপে চাষের লৰমাত্রা ছিল ১ হাজার ১৮৬ হেক্টরে। আবাদ হয়েছে ১ হাজার ৪শ’ হেক্টরে।