স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর আব্দুস সোবহান বলেছেন, অ্যাপেঙ ক্লাবকে আলোকিত মানুষ গড়ার দায়িত্ব নিতে হবে। গতকাল শনিবার দুপুরে নগরীর সীমান্ত নোঙ্গর সম্মেলন কেন্দ্রে অ্যাপেঙ-এর ১০তম জেলা ডিজি-৯-এর কনভেনশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
প্রফেসর আব্দুস সোবহান আরো বলেন, অ্যাপেঙের অর্থ হচ্ছে শীর্ষ অর্থাৎ চূড়া। এর একটি ভিশণ আছে। সমাজিক কাজ আছে। এর একটি দায়বদ্ধতা আছে। এর কাজ হচ্ছে মানুষের সেবা। এর জন্য অর্থের প্রয়োজন রয়েছে। তবে সর্বাগ্রে দরকার ইচ্ছার। মানুষ সৃষ্টি হয়েছে এই জন্যেই। আর এজন্যে যদি ক্লাব গঠন হয় তা হলে তার লৰ্য হবে মানব সেবা ও সমতা প্রতিষ্ঠা। গরিব-ধনির সমতা, নারী-পুর্বষের সমতা। আর এই সরকারের আমলে নারীরা যেভাবে এগিয়েছে তাতে তাদের অগ্রযাত্রা কেউ ঠেকিয়ে রাখতে পারবে বলে মনে হয় না।
তিনি আরো বলেন, সব উন্নয়নে শুধু সরকারকেই সব কিছু করতে হবে তা নয়। এর জন্য সকলের এগিয়ে আসতে হবে। তাই এই অ্যাপেঙ ক্লাব ততোদিন টিকে থাকবে যত দিন কমন ইস্যুগুলো নিয়ে অসহায় বঞ্চিত মানুষের পাশে থাকবে। তাদের শিৰিত করে গড়ে তুলবে। শিৰার আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে আলোকিত মানুষ। তাই অ্যাপেঙ ক্লাবের আলোকিত মানুষ গড়ে তোলাই আসল উদ্দেশ্য হওয়া উচিৎ।
কনভেনশনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ অ্যাপেঙ ডিজি-৯ এর সভাপতি রাজেন্দ্র নাথ সরকার। এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন। বাংলাদেশ অ্যাপেঙ–এর সহসভাপতি এমএ কাইউম চৌধুরী,সাবেক ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট খোরশিদ আলম অর্বন, সাবেক সহসভাপতি আনিসুজ্জামান সাতিল ও অনিল কুমার ম-ল প্রমুখ।
কনভেনশনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অ্যাপেঙ-এর সাবেক ডিজি রওশন আরা শ্যামলী। এতে ৯ জেলার ডেলিগেটসহ প্রতিনিধিরা অংশ নেন।